,
Menu |||

রাতের পর রাত

মঙ্গলবার, ১৮ জুলাই, ২০১৭ :

রাতের পর রাত
আজ দিনের অবস্থা বেশী ভাল না। পূর্ব নির্ধারিত কথা অনুযায়ী নয়ন কাজলের বৈঠক হওয়ার কথা পূর্ব লন্ডনের বাংলা টাউনখ্যাত ব্রিকলেনের কোন একটি রেস্টুরেন্টে। তারা সেখানে দুপুরের খাবার খাবে আর এ সপ্তাহের রাতের পর রাত’র বিষয়বস্তু নিয়ে বিশদ আলোচনা করবে। কিন্তু বিধিবাম ব্রিটেনের আজকের আবহাওয়া সব কিছু ওলট-পালট করে দিল। নয়ন এ বৃষ্টিভেজা মেঘলা আবহাওয়ায় ঘর থেকে হতে পারবে না। আবহাওয়া ভাল হলে আসবে, তাই দুপুরের খাবার সে বাসায় খেয়ে ফেলবে। কাজল ঠিক করলো তা হলে তাঁকেও বাসায় দুপুরের খাবার খেয়ে নেওয়া শ্রেয়। কাজল মনে মনে ভাবে এই জন্যই একটা কথা বলা হয়ে থাকে ব্রিটেনে তিন ডব্লিউকে বিশ্বাস করতে নেই? যার একটি ব্রিটিশ ওয়েদার। এরই মধ্যে আবার রোদের ঝলক দেখা দিলে কাজল ভাবলো তাহলে বুঝি নয়ন চলে আসবে। না কিছুক্ষনের মধ্যে আবার সেই একই অবস্থা, একেবারে মুশলধারে বৃষ্টি। তাই কাজল নয়নকে ফোন দিয়ে বললো সে যেন বিকালের দিকে বৃষ্টি থামালে কাজলদের বাসায় চলে আসে। তারা সেখানে বসে তাদের বিষয়বস্তু নিয়ে আলোচনা করবে। আলোচনার বিষয়বস্তু প্রায় নির্ধারিত বাংলাদশে হাই কমিশনের প্রেস মিনিষ্টার নাদীম কাদেরকে নিয়ে। সে যে একটি সুক্ষ¦ কারচুপির স্বীকার তা একটু বিশদ আলোচনা করা। দিনের অবস্থার তেমন কোন পরিবর্তন নেই। তবে বৃষ্টি একটু কম আর এর ফাঁকে নয়ন চলে এসেছে কাজলদের বাসায়। চা চক্র শেষে নয়ন প্রথমে জানতে চাইলো, গত সপ্তাহে সাপ্তাহিক জনমতে সাঈম চৌধুরী লেখাটা কেমন হলো? কাজলের উত্তর, চমৎকার। আমদের বিশদ আলোচনার পূর্বে সাঈম চৌধুরীকে একটা ধন্যবাদ না দিলে অন্যায্য হবে। গত সপ্তাহে আমারই আলোচনায় নিয়ে এসেছি ’ সাদাকে সাদা বলবোই কালোকে কালো ’ তাই সাঈমকে তার প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত করা যাবে না। কথা প্রসঙ্গে কাজল আরো বললো, সাঈম চৌধুরী অনেকটা উল্লেখ করে ফেলায় আমাদের জন্য অনেক ভাল হলো যা আমরা পুনরাবৃত্তি ঘটাবো না। যাক এবার আসা যাক আমাদের আলোচনার প্রসংগে। নয়নের প্রশ্ন, কাজল কতটুকু জানে বর্তমান হাইকমিশনের প্রেস মিনিস্টারকে? কাজলের জবাব আমাদের আলোচনার বিষয় কিন্তু ব্যক্তি কেন্দ্রীক নয়, পদকেন্দ্রিক। ঘটনাচক্রে যেহেতু বর্তমান প্রেস মিনিস্টার নাদীম কাদের তাই তার নাম আসছে। আর তাছাড়া এ নামের সাথে জড়িত বাংলা আর বাঙালির আত্মপরিচয়ের সূচনা আর সে প্রসংগটা আমাদের আলোচনার মুখ্য উদ্দেশ্য। নয়ন জানতে চাইলো কিভাবে? কাজল বললো, তুমি শোন আর আমি বলি, যা তোমার মত আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য শিক্ষণীয় ও কাজে লাগবে। আমার সম্পর্ক নাদীম কাদেরের সাথে আদর্শিক। গত চার দশক ধরে কাজল ব্রিটেনের বাসিন্দা, বাংলাদেশ হাইকমিশন সম্পর্কে কমিউনিটির সম্পর্ক তেমন একটা ভালো এমন একটা খুব দেখা যায়নি। যার ব্যতিক্রম হিসেবে সমাজের বিশেষ করে সাংবাদিকদের সাথে একটি জোরালো হৃাদিক সম্পর্ক গড়ে তুলে ছিলেন বর্তমান প্রেস মিনিস্টার নাদীম কাদের। আর এটা সম্ভব হয়ে ছিল নাদীম কাদেরের মত ব্যক্তিত্বের পক্ষে, যার শিরায় উপশিরায় প্রবাহিত হচ্ছে, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা, আর মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। আর এ চেতনা আছে বলেই তার আমলে প্রবাসে মিডিয়ার সাথে একটা আমুল পরিবর্তন নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। প্রবাসে দেশ ও জাতিকে এগিয়ে নিয়ে য়েতে হলে যা যা করনীয় নাদীম কাদের তার একটি রোল মডেল। তার সবকিছুর পিছনের যে শক্তিটুকু কাজ করেছে সেটা তার মা-বাবার আদর্শ আর অনুপ্রেরণা। যার বাবা জাতির জনকের ডাকে সাড়া দিয়ে পাক সেনাবাহিনী ছেড়ে পাক হায়েনাদের বিরুদ্ধে দেশমাতৃকাকে শত্র“মুক্ত করতে স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিলেন এবং যুদ্ধের মাঠে বীরের বেশে শহীদ হয়ে ছিলেন। আর মা জননী স্বাধীন বাংলাদেশে স্বামীর আদর্শকে ধারন করে একাত্তরের ঘাতক দালালদের বিচারের দাবিতে সোচ্চার ছিলেন। যার ফলশ্র“তিতে আজ বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর রক্ত বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে ঘাতকদের বিচার হয়েছে এবং সেইসব রাজাকার আলবদরদের ফাঁসির কাষ্টে ঝুলতে হয়েছে। এবার নয়ন বললো, তার পূর্বে কি বাংলাদেশ হাই কমিশন প্রবাসীদের স্বার্থ নিয়ে কাজ করেনি। তার জবাবে কাজল বললো, কাজ করেনি এমনটা বলবো না। তবে যা হয়েছে খুবই অল্প। তাছাড়া ৭৫ এর পটপরিবর্তনের পর দুই দশকের উপর দেশ-বিদেশে জনগণের কাছে কোন জবাবদিহি মূলক সরকার ছিল না। জাতি সামরিক শাসনের দাবানলে শাসিত হয়েছে আর তার পরিসমাপ্তি যে নাদীম কাদেরের দেশ ও জাতি প্রেমে হয়নি তা অস্বীকার করা আর মীরজাফরের ভূমিকা নিয়ে অভিনয় করার শামিল। কাজলের কথায় নয়ন কিছুটা আঘাত পেলেও কাজলের কিছু যায় আসে না। বাস্তবতাকে এড়িয়ে বা পাশ কেটে মিথ্যাকে বাস্তবে রূপ দেওয়া যায়না। একটা কথা আছে, গোবর দিয়ে সোনা আশা করা য়ায় না বড়জোড় সারের কাজে লাগানো যায়। নয়ন এবার জানতে চাইলো কাজলের শেষ কথা কি? কাজল বললো শেষ বলতে কিছু নেই তবে একটি কথা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে পারবো যুগে যুগে প্রেরণার জন্ম হয় যার প্রতিচ্ছবি আমি দেখতে পেয়েছি নাদীম কাদেররে মধ্যে, আর যা দেখেছি তা তুলে ধরা আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য বলে মনে করি। তাই আবারো বলি অবিশ্বাসের বেড়াজালের চাইতে বিশ্বাসের দাবানলে স্ফুলিঙ্গ জ্বালিয়ে তুলো। নাদীম কাদের তুমি আমাদের বিশ্বাস, তোমাকে লাল সালাম।

লন্ডন, ১৮ জুলাই ২০১৭

লেখক- রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক ও সাবেক কাউন্সিলার

Share
প্রধান সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতা ॥ শাহাব উদ্দিন আহমেদ বেলাল
প্রধান সম্পাদক কর্তৃক লন্ডন থেকে প্রকাশিত।
ফোন ॥ (+৪৪)৭৯৪৪৩০৫৪৮৮
ই-মেইল ॥ probashebangladesh@hotmail.com
Copyright © BY Probashe Bangladesh
Design & Developed BY Popular-IT.Com